আতশবাজির আলোকচ্ছটায় আলোকিত হলো উদ্যান, কনসার্ট ফর ফ্রিডমে মাতলো জনতা

Print Friendly, PDF & Email

ডেস্ক রিপোর্ট : বিজয়ের আনন্দে বর্ণিল আতশবাজীর আলোকচ্ছটায় আলোকিত হলো সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের আকাশ। সন্ধ্যার কয়েক সেকেন্ড পরেই কেঁপে উঠল উদ্যান। আকাশ ভরে উঠল রংধনুর সাত রঙে।  ছয়টা চার মিনিট পর্যন্ত জনতা বিমুগ্ধ চোখে উপভোগ করল শূন্যে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা আতশবাজির নানা রঙা ফুলকি।

তখন চারদিকে করতালি আর হর্ষধ্বনি। একই সঙ্গে বিজয় মঞ্চেও ছিল মিউজিক্যাল দামামা। গান আর আতশবাজির অপূর্ব এক সমন্বয়ে বেশ জমে উঠেছিল সোহরাওয়ার্দী উদ্যান। সৃষ্টি হলো নতুন বিজয় আনন্দের গল্পগাথা। বিজয় দিবসের সন্ধ্যা পৌনে ৬টায় শুরু হয়ে এ আতশবাজী চলে ৬টা ০৪ মিনিট পর্যন্ত। মূলমঞ্চের মিউজিকের তালে তালে আকাশে বাহারী আতশবাজি ফোটানো হয়। আতশের আলোয় রঙিন হয়ে ওঠে রাতের আকাশ।

এ সময় উপস্থিত জনতা মেতে ওঠে অন্যরকম এক আনন্দে। দীর্ঘ প্রায় ২৫ মিনিট হাজার হাজার মানুষ হর্সধ্বনির সঙ্গে উপভোগ করেন আতবাজির রঙিন আলোর খেলা। এই আতশবাজী উৎসব যেন মনে করিয়ে দেয় বাঙালির দীর্ঘ স্বাধীনতা সংগ্রামের পর অর্জিত বিজয়ের আনন্দ উল্লাসের কথা।

সন্ধ্যা সাড়ে পাঁচটায় শুরু হওয়া কনসার্ট ফর ফ্রিডমের দ্বিতীয় পর্ব শুরু হয়েছে ব্যান্ডদল মেকানিকসের পরিবেশনার মধ্য দিয়ে।

এই পর্বে আরো পরিবেশন নিয়ে আসবে ব্যান্ডদল স্লোগান, ব্ল্যাক, পেন্টাগন, ডি এলিনিমেশন, নেমেসিস, ক্রিপ্টিক ফিট, উচ্চারণ, শূন্য, দলছুট, ওয়ারফেজ ও সোলস।

এর আগে বেলা ৪টা ৩১ মিনিটে বিজয় দিবস উদযাপন জাতীয় কমিটি, গণজাগরণ মঞ্চ, সেক্টর কমান্ডার্স ফোরাম, বিজয় ৪:৩১ মঞ্চ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন মঞ্চ সারাবিশ্বের কোটি বাঙালিকে সঙ্গে নিয়ে বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত পরিবেশন করে। এদিন সকালে ‘বিজয়ের সূর্যদয়, বাংলাদেশ বিশ্বময়’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিজয় দিবসের অনুষ্ঠান শুরু হয়।

Comments

comments