‘চাকরি পেতে নয়, দিতে চাই’

Print Friendly, PDF & Email

মো. আশরাফুল আলম: দেশে ভালো মানের চাকরি পাওয়া যখন সোনার হরিণ হয়ে গেছে তখন বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়া শিক্ষার্থী নিজেই উদ্যোগ নিলো চাকরি দেওয়ার উদ্যোগ। সরকার ইতোমধ্যে তৃতীয় প্রজন্মের ইন্টারনেট সেবা (থ্রিজি)-র লাইসেন্স দিয়ে দিয়েছে। এর ফলে এখন দেশে উচ্চগতিসম্পন্ন ইন্টারনেট ব্যবহার করা যাবে যেমন, তেমনই এর সহজলভ্যতা মানুষকে প্রযুক্তির কাছে টানবে আরো।

আর এই ইন্টারনেট সেবাকে কেন্দ্র করে উন্নত বিশ্বে গড়ে উঠেছে আরেক ধরনের বাজার ‘ই-কমার্স’। বাংলাদেশে এ ধারণা নতুন বললে ভুল হবে। এরই মধ্যে অনেক ই-কমার্স চালু হয়েছে এবং তাদের মধ্যে অনেকেই নাম লিখিয়েছে সফলতার খাতায়। সংক্ষেপে ই-কমার্স হলো এমন একটি ওয়েবসাইট যেখান থেকে মানুষ পণ্য কিনতে পারে।

1ইন্টারনেটর সজলভ্যতা বিশেষ করে মোবাইল ফোন ব্যবহার হওয়ার কারণে এখন এই ধরনের ব্যবসা বেশ জমে উঠেছে। আর এ প্রযুক্তিকেই কাজে লাগাচ্ছেন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থী মাকসুদা রহমান স্বর্ণা।

তার সাথে কথা বলে জানা গেছে, তিনি মূলত চাকরি পেতে নন, বরং চাকরি দিতে চান। কারো অধীনে থেকে কাজ না করে উদ্যোক্তা হওয়ার স্বপ্ন দেখেন নিজেই।

তারই ধারাবাহিকতায় ব্যবসায় প্রশাসন নিয়ে পড়ুয়া এই শিক্ষার্থী নিজেই ব্যবসা শুরু করলেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুককে কেন্দ্র করে তার ব্যবসায় গড়ে উঠেছে। তিনি ফেসবুকে পেইজ (https://www.facebook.com/bddokan0088) এবং গ্রুপ (https://www.facebook.com/groups/bddokan/) এর মাধ্যমে শুরু করেছে ই-কমার্স। ১ নভেম্বর থেকে ফেসবুকের মাধ্যমে তিনি ব্যবসায় জগতে প্রবেশ করলেন বিডি দোকান নাম নিয়ে।

স্বর্ণা জানান, ই-কমার্স সাইট (http://bddokan.com/) বানানোর কাজ ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে। ডোমেইন এবং হোস্টিং কেনার পর এখন ডিজাইনার সেটি নকশা করছেন। এরই মধ্যে তিনি তার ক্রেতাদের সকাল ৯টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত মোবাইল ফোনে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন।

ফেসবুকে কেন শুরু করলেন এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, “বর্তমানে আমাদের তরুণ সমাজ ফেসবুক নির্ভর। পরীক্ষার রুটিন থেকে শুরু করে সব কিছুতে তারা ফেসবুকে ঢুঁ দেয়। আর আমার ব্যবসার সম্ভাব্য ক্রেতা হিসেবে তাদের ধরা হয়েছে বলেই ফেসবুক থেকেই এ যাত্রা শুরু।”

অর্থায়নের ব্যাপারে তিনি বলেন, “তার আরেক উদ্যোক্তা বন্ধুর সহায়তায় অর্থায়ন হচ্ছে। এজন্য তাকে মালিকানার অংশ দিতে হচ্ছে।”

সরকার অনলাইনে ব্যবসা করার ব্যাপারে নীতিমালা না করার কারণে ব্যাংক লোন কিংবা অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা পেতে সমস্যা হচ্ছে বলে জানান স্বর্ণা।অনলাইনে ক্রেতাদের কাছ থেকে পণ্য সরবরাহের অর্ডার নিচ্ছেন এবং অর্থ প্রদানের জন্য বিকাশ ও ডাচ বাংলা মোবাইল ব্যাংককে বেছে নিয়েছেন।

এছাড়াও ঢাকার ভিতরে নিজেদের কর্মী এবং ঢাকার বাইরে কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে তিন কর্মদিবসের মধ্যে পণ্য সরবরাহ করে থাকে বিডি দোকান। এখন এ দোকানে রয়েছে প্রায় লক্ষাধিক টাকার পণ্য।

Comments

comments