নারীদের একটু বেশি ঘুমাতে দিন !

Print Friendly, PDF & Email

ডেস্ক রিপোর্ট: নারী এবং পুরুষের মধ্যে কার বেশি ঘুম প্রয়োজন? বিষয়টি হয়ত বিশেষভাবে আপনার মনে না এলেও সম্প্রতি কিছু গবেষক এই বিষয়টি নিয়ে গবেষণা শুরু করেন এবং অবশেষে তারা জানান যে, নারীদের ঘুমের প্রয়োজনটা পুরুষের চেয়ে বেশি। অবাক হলেন কি?

বিজ্ঞানীরা নারীদের বেশি সময় ঘুমের প্রতিই রায় দিয়েছেন, তার কারন সারাদিনে তারা নানান ধরনের কাজে ব্যস্ত থাকেন। প্রশ্নউঠতেই পারে পুরুষের তবে সারাদিন কোনোই কাজ থাকে না ? ব্যাপারটি এমন নয়। বিজ্ঞানীরা বলছেন, নারীদের সারাদিনের কাজে বৈচিত্রতা পুরুষদের তুলনায় বেশি। অর্থাৎ একজন পুরুষকে যেখানে অফিসে কেবলমাত্র একটি নির্দিষ্ট ধাঁচের কাজই করতে হয়, সেখানে নারীকে বাসায় কয়েক ধরনের কাজ করতে হয়, যাদের প্রত্যেকের প্রকৃতিই ভিন্ন রকমের। এবং একই দিনে প্রায় ভিন্ন রকমের এতোগুলো কাজের কারণে মস্তিষ্কের ওপর তাদের চাপও পড়ে বেশি। কাজের বৈচিত্রতার কারণে সৃষ্ট এই চাপ দূর করে পুনরায় কর্মক্ষম হয়ে উঠতে নারীদের ক্ষেত্রে বাড়তি ঘুমটা অপরিহার্য। কিছু বিজ্ঞানী গবেষণা করে দেখেছেন যে যেইসব নারীরা পর্যাপ্ত ঘুম থেকে বঞ্চিত হয়, তারা সাধারণত হতাশায় ভুগেন এবং অল্পতেই বিরক্ত এবং রাগান্বিত হয়ে উঠেন । কিন্তু পুরুষের ক্ষেত্রে এ ধরনের কোনও প্রভাবই পাওয়া যায়নি ।

স্বল্প ঘুমের কারণে শরীরেও নানা ধরণের সমস্যা দেখা দিতে পারে। যার মধ্যে অন্যতম একটি সমস্যা হল হৃদরোগের ঝুঁকি বেড়ে যাওয়া। এছাড়াও মানসিক সমস্যা, স্ট্রোক,অঙ্গ-প্রতঙ্গের প্রদাহসহ নানা সমস্যাও দেখা দিয়ে থাকে।

ঘুম বিশেষজ্ঞ ডঃ মাইকেল ব্রেউসের মতে,যেইসব নারীরা পর্যাপ্ত ঘুম থেকে বঞ্চিত হয়,তারা তাদের শরীরের বিভিন্ন স্থানে প্রদাহ এবং ব্যথা অনুভব করে। তিনি বলেছেন,দিনের বেলা স্বল্প নিদ্রার (naps) মাধ্যমেও নারীরা বিভিন্ন শারীরিক সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পারেন এবং স্বল্প নিদ্রাটি অবশ্যই ৯০ মিনিটের বেশি হওয়া উচিত নয়। তিনি বলেছেন,নারীদের অধিক ঘুমের প্রয়োজন যেহেতু তারা পুরুষের তুলনায় অনেক বেশি মস্তিস্ককে ব্যবহার করে এবং অধিক পরিশ্রম করে। তিনি আরও বলেছেন, সেসব পুরুষরা চিন্তাশীল বা সৃজনশীল কাজের সাথে যুক্ত তাদেরও অতিরিক্ত ঘুমের প্রয়োজন রয়েছে । সৌজন্যে : সম্পূর্ণ রঙিন

 

Comments

comments