,


চলুন দেখে আসি দুইশত বছর আগের নবাবগঞ্জের মনকাড়া ঐতিহ্য

মাকসুদা রহমান স্বর্ণাঃ শহরের যান্ত্রিক জীবন ছেড়ে চলুন ঘুরে আসি আজ ইছামতি নদীর তীরে অবস্হিত, নবাবগঞ্জ জমিদারবাড়ি থেকে। নবাবগঞ্জ জমিদারবাড়ি খ্যাত জজবাড়ি, নবাবগঞ্জ উপজেলার কলাকোপায় অবস্হিত।
aaa
যেভাবে যাবেনঃ
ঢাকা থেকে নবাবগঞ্জ জমিদারবাড়িতে আপনি অনেক ভাবেই যেতে পারেন, সবচেয়ে ভাল উপায় হচ্ছে আপনার সাথে যদি নিজের গাড়ি থাকে। ফ্যামেলি নিয়ে অথবা সব বন্ধুরা মিলে একজোট হয়ে কাটিয়ে দিতে পারেন দারুন একটা দিন।
রেন্ট-এ-কার ও যেতে পারেন। ঢাকার ফ্রামগেট থেকে ইয়োলোক্যাব নিয়ে গেলে আপনার যাওয়া আসার খরচ পরবে ২৫০০ টাকা থেকে ৩০০০ টাকার মধ্যে (গ্যাস, ব্রিজ টোল সহ সবকিছু)। তবে ক্যাব নিলে আগে থেকে সব কিছু মিটিয়ে নিয়ে যাবেন। যাওয়া আসার পথে অনেক গুলো যায়গায় প্রায় ২০০ টাকার মতন টোল দিতে হয়।
সিটিং সার্ভিসেও যেতে পারেন। গুলিস্তান মাজারের কাছে নিয়মিত বান্দুরাগামী বাস সার্ভিস আছে।
যেতে সময় লাগবে ১ ঘন্টা ২০ মিনিট থেকে ২ ঘন্টার মতন।

কো-অর্ডিনেটঃ
নবাবগঞ্জ জমিদার বাড়ী (যা জজবাড়ি হিসেবে খ্যাত) কো-অর্ডিনেট হচ্ছেঃ 23°39’28.62″N 90°08’31.59″E, এখন আপনি ইচ্ছে করলেই গুগুল ম্যাপ দিয়ে এই কো-অর্ডিনেট ধরে ভার্চুয়াল ট্যুর দিয়ে আসতে পারেন।
ঢাকা থেকে দিনে যেয়ে দিনেই ফিরে আসা যায়, তবে সকাল ১০ টার ভিতর যাত্রা শুরু করাটা হবে যথার্থ। কারন তাতে আপনার হাতে থাকবে বেশ অনেক কিছু সময়, ধীরে সুস্হে দেখতে পারবেন প্রাচীন নির্দশনগুলো।

নবাবগঞ্জ যেতে হয় ২য় বুড়ীগঙ্গা ব্রিজ দিয়ে কেরানীগঞ্জ হয়ে। চার পাশে চিরায়িত সবুজের সমারোহ দেখতে দেখতে আপনি চলে আসবেন ২০০ বছরের ইতিহাস সম্বলিত নবাবগঞ্জের জমিদার ব্রজেন সাহার জমিদার বাড়িতে, যা এখন জজবাড়ি নামে খ্যাত। এছাড়াও দেখার মত আছে ১. জজবাড়ি ২. নতুন বাড়ি ৩. কোকিলপেয়ারী জমিদার বাড়ি ৪. তেলেবাড়ি/মঠবাড়ি ৫. পাইন্না বাড়ি ৬. জমিদার বাড়ি ৭. আন্দরকোট্টা/বিগ্রহ মন্দির

a

গুগল ম্যাপে এমনটা লাগলেও বাস্তবে আপনার মন কাড়তে বাধ্য হবে নবাবগঞ্জের ঐতিহ্য।

ফটোঃ মাকসুদা রহমান স্বর্ণা ও তাহেরা জামান মুন

Comments

comments