,


উন্নয়নের মহাসড়কের যাত্রীদের দু’চোখ জুড়ে দেশ গড়ার স্বপ্ন

নিজস্ব প্রতিনিধি, মধুপুর : স্বাধীনতা, অর্থনৈতিক মুক্তি ও সোনার বাংলার স্বপ্নে- একজন খোকার আহবানে যুদ্ধ অত:পর স্বাধীনতা, স্বাধীনতার ৪৬ বছর পার করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের মহাসড়কের যাত্রী জাতি দেশ গড়ার স্বপ্ন দু’চোখ জুড়ে এমডিজি, এসডিজি- ২০২১-৪১ পার হয়ে উন্নত জাতির হাতছানী অদম্য তারুণ্য শক্তি আর মনোবল এ জাতিকে নিয়ে যাবে লক্ষ্যে- কাব্যিক কন্ঠে ও শিল্পী হায়দার আলীর ‘স্বপ্ন’ গানে এমন আবহে জনতার মুহূর্মুহ করতালি- উচ্ছ্বাস।

রোববার (২৬ মার্চ) বেলা ১১ টার দিকে টাঙ্গাইলের মধুপুর রাণী ভবানী মডেল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এমন চমৎকার ডিসপ্লে প্রদর্শন করলো চাড়ালজানী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা। মনোরম ডিসপ্লেতে উঠে এলো বর্তমান সরকারের উন্নয়নের নানা চিত্র। এতে উন্নয়নের কর্ণধার মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিচ্ছবিও উঠে এলো।

ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের এমন পরিবেশনা জাতীয় সংসদের অর্থ বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি, আ’লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. আবাদুর রাজ্জাক এমপিসহ দর্শক, অতিথি ও বিচারকদের আকৃষ্ট করেছে বিশেষভাবে। ফলে স্বাধীনতা দিবসের ডিসপ্লেতে প্রাথমিক স্তরে তারাই প্রথম হয়ে পুরষ্কার জিতেছে।

পুরষ্কার জেতা চাড়ালজানী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাথে ওই মাঠে উপজেলার প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের প্রায় অর্ধশতা প্রতিষ্ঠান অংশ নিয়েছিল। অংশ নেয়া প্রতিষ্ঠান গুলো তাদের ডিস প্লেতে শারীরিক কসরতে মুক্তিযুদ্ধের নানা ইতিহাস তুলে ধরে।

এর আগে একই মাঠে সকালে অনুষ্ঠিত হয় কুজক্ওায়াজ। এতে ওইসব বিদ্যালয়ের তিন শতাধিক শিক্ষার্থী, পুলিশ বাহিনী, আনসার সদস্যরা অংশ নেন। উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে ওই কুজকাওয়াজে সালাম গ্রহণ করেন উপজেলা চেয়ারম্যান ছরোয়ার আলম খান আবু। সালাম গ্রহণের পর অনুষ্ঠানে এসে যোগদেন প্রধান অতিথি স্থানীয় সংসদ সদস্য সাবেক খাদ্যমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক। এসময় মধুপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রমেন্দ্র নাথ বিশ্বাস, টাঙ্গাইল জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান উপজেলা আ’লীগের সভাপতি খন্দকার শফি উদ্দিন মনি, মেয়র মাসুদ পারভেজ,সহকারি কমিশনার(ভূমি) সারাহ্ সাদিয়া তাজনীন,মধুপুর সার্কেলের সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার আলমগীর কবির,ওসি সফিকুল ইসলামসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

সকাল ৫ টা ৫৭ মিনিটে উপজেলা প্রশাসন শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবদেন করে। সকাল ৮ টায় রাণী ভবানী মাঠে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, ১ মিনিট নিরবতা পালন, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা, সম্মাননা প্রদান করা হয়। সকাল সাড়ে ১০ টায় শুরু হয় কুচকাওয়াজ, ডিসপ্লে, নারীদের মধ্যে বালিশ খেলা এবং স্থানীয় সংসদ সদস্য বনাম অপরাপর জনপ্রতিনিধিদের মধ্যে রশি টানাটানি প্রতিযোগিতা। পরে বিজয়ী প্রতিষ্ঠানসহ সংশ্লিষ্টদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ করা হয়।

Comments

comments