সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ প্রতিযোগিতায় ‘বছরের সেরা মেধাবী’ মধুপুর শহীদ স্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী

0

নিজস্ব প্রতিনিধি : সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ প্রতিযোগিতা ২০১৭ সালের জাতীয় পর্যায়ে সেরা মেধাবী নির্বাচিত হয়েছে টাঙ্গাইলের শীর্ষ বিদ্যাপিঠ মধুপুর শহীদ স্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী মোঃ রবিন আল আজাদ। সে বিজ্ঞান বিষয়ে ৯ম ও ১০ গ্রুপে জাতীয় পর্যায়ে বছরের সেরা মেধাবী নির্বাচিত হয়েছে।

গত মঙ্গলবার রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে রবিনসহ সকল বিজয়ী সেরা মেধাবীদের হাতে গতকাল পুরস্কার তুলে দেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

তিনি বলেন, শিক্ষাকে একটি সৃজনশীল ধারায় নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। এ জন্য শিক্ষকদের পাঠদানের কৌশল, শ্রেণিকক্ষের পরিবেশ বদলাতে হবে। শিক্ষার লক্ষ্য হচ্ছে, পড়ার আগ্রহ ও মেধা বিকাশের সুযোগ তৈরি করা এবং নিজের শক্তিকে কাজে লাগানোর চেষ্টা করা। শুধু পাঠ্যবইয়ের শিক্ষায় নিজেদের সীমাবদ্ধ না রেখে নিজেকে পরিপূর্ণ বিকাশের সুযোগ নিতে ও দিতে হবে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো: সোহরাব হোসাইনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে কারিগরি ও মাদরাসা বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সচিব মো: আলমগীর, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক প্রফেসর ড. এস এম ওয়াহিদুজ্জামান এবং অতিরিক্ত সচিব মো: মহিউদ্দিন খান ও চৌধুরী মুফাদ আহমদ বক্তব্য রাখেন।

সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ ২০১৭ প্রতিযোগিতায় পুরস্কারের অর্থ ও সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়েছে। ১২ জন সেরা মেধাবীকে এক লাখ করে এবং অন্য ৯৬ জন প্রতিযোগীকে পাঁচ হাজার টাকা করে প্রদান করা হয়। তিনটি গ্রুপে ১২ জন সেরা মেধাবী বিদেশে পাঁচ দিনের শিক্ষা সফরের সুযোগ পেয়েছেন।

সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে বছরের সেরা মেধাবী পুরুস্কার বিজয়ী হওয়ায় রবিনকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন মধুপুর শহীদ স্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয়ের অ্যালামনাই এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আলিম। তিনি বলেন, রবিন আমাদের গর্ব। তার এই সাফল্য আমাদের বিদ্যালয়ের জন্য সুনাম বয়ে এনেছে। আমরা তার সুন্দর ভবিষ্যত প্রত্যাশা করছি।

উল্লেখ্য যে, গত ১৮ মার্চ জাতীয় পর্যায়ে সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ প্রতিযোগিতা শুরু হয়। দেশের আটটি বিভাগ ও ঢাকা মহানগরী থেকে ১০৮ জন প্রতিযোগী জাতীয় পর্যায়ে অংশ নেয়। ষষ্ঠ থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত তিনটি গ্রুপে চারটি বিষয়ে এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। চারটি বিষয হলো, ভাষা ও সাহিত্য, দৈনন্দিন বিজ্ঞান/বিজ্ঞান, গণিত ও কম্পিউটার এবং বাংলাদেশ স্টাডিজ ও মুক্তিযুদ্ধ। শিক্ষা মন্ত্রণালয় ২০১৩ সাল থেকে সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ প্রতিযোগিতার আয়োজন করে আসছে।

Comments

comments

Share.

Leave A Reply