ঢাকা সোমবার, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০১৮

Mountain View



ঘাটাইলে জমে উঠেছে ঈদের বাজার

Print Friendly, PDF & Email

মোঃ আরিফ খান, নিজস্ব প্রতিনিধি ঃ   ঈদ যত ঘনিয়ে আসছে টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলায় বিপনী বিতান গুলোতে জমে উঠেছে মাহে রমজানের শেষে অনুষ্ঠিত পবিত্র ঈদুল ফিতর। ছোট বড় সবাই ব্যস্ত ঈদের কেনাকাটা নিয়ে। উপজেলার প্রত্যান্ত অঞ্চল থেকে পাশ্ববর্তী উপজেলা থেকে ঘাটাইল উপজেলায় আসছে কেনাকাটা করার জন্য। তাইতো কাপড়ের দোকান গুলো থেকে শুরু করে অন্যান্য দোকানে মানুষের উপচে পড়া ভীড়। মাঝে মাঝে বৃষ্টি ও গরম কে উপেক্ষা করে থেমে নেয় কেনাকাটার।

aaaaa

ঘাটাইলের পারুল প্লাজা, দিলারা শপিং কমপ্লেক্স, জাহানার কমপ্লেক্স, রাজু ফ্যাশন, জনতা কমপ্লেক্স, খলিল প্লাজা, কাদের কমপ্লেক্স, কাজী মোবারক মরিয়ম শপিং সেন্টার, নিউ মার্কেট সহ অবস্থিত দোকান গুলোতে মানুষের উপচে পড়া ভীড় চোখে পড়ার মত। এবারের ঈদের বিশেষ আকর্ষন ছোট থেকে বড় পর্যন্ত স্টার জলসার কিরণমালা পরিহিত ড্রেস। যা দোকানীরা দাম হাকাচ্ছে ১৫শ থেকে ৫ হাজার পর্যন্ত। কিরণ মালা ছাড়াও রাজকুমারী-২, প্রেম ম্যাম, পাখি রিটার্ন, অগ্নি-২, রাজরাণী-২, জলনুপুর, চেন্নাই এক্সপ্রেস সহ নানা নামের বাহারি পোশাক শপিংমল গুলোতে শোভা পাচ্ছে। ছেলেদের জন্য এবার ঈদের বিশেষ আকর্ষন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরন্দ্রে মোদীর পরিহিত পোশাকের আদলে বিক্রি হচ্ছে মোদি-২ বাজারে। ফলে মধ্যবৃত্তের জন্য কিরণমালা গলার ফাঁস হয়ে দাড়িয়েছে। কাপড়ের মধ্যে টাঙ্গালের সিল্ক, জামদানি, টিস্যু, কাতান, জর্জজেট সহ নানা রংয়ের নানা দামের মহিলাদের পড়ার কাপড়। জুতার দোকান গুলোতেও ঈদের কেনাকাটার ধুম পড়ে গেছে।

ডি কে চয়নিকা টেইলার্সের মালিক ফিরোজুর রহমান মিয়া জানান আমরা ঈদের ৭ দিন পূর্ব থেকে সমস্ত অর্ডার নেওয়া বন্ধ করে দিয়েছি। কেননা যে পরিমাণ অর্ডার নেওয়া হয়েছে তাতে ঈদের মধ্যে ডেলিভারী দেওয়া আমাদের পক্ষে সম্ভব হবে না বলে জানান।

অপরদিকে এক ক্রেতা ফতের পাড়া গ্রামের আঃ রাজ্জাক খান জানান আমাদের মত নিম্ন মধ্যবিত্তের লোকদের এবার কাপড় চোপড় কেনা কঠিন হয়ে দাড়াবে। ৩ মণ ধান বিক্রি করলে একজনের কাপড় কেনাও সম্ভব নয়।

৩নং জামুরিয়া মডেল ইউনিয়নের ০৭ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোঃ মিন্টু মিয়া জানান, এবার নামের উপরে কাপড়ের দাম নির্ধারন করা হয়েছে-ইন্ডিয়ান লেহেঙ্গা, পাকিস্তানি লেহেঙ্গা, বিভিন্ন নামে ক্রেতাদের আকৃষ্ট করার জন্য এগুলো বিক্রি করা হচ্ছে। আমার ছয় বছরের মেয়ের জন্য ২৩শ টাকায় একটি লেহেঙ্গা শপিং মল থেকে ক্রয় করেছি।

ফেসবুক মন্তব্য