ঢাকা মঙ্গলবার, নভেম্বর ২০, ২০১৮

Mountain View



ছেলেকে পড়া না ধরার অভিযোগে মির্জাপুরে শ্রেণিকক্ষেই শিক্ষককে পেটালেন অভিভাবক

Print Friendly, PDF & Email

নিজস্ব প্রতিনিধি : পড়ার জন্য শিক্ষক ছাত্রকে বেদম পিটিয়ে শয্যাশয়ী করেছেন- এমন নিষ্ঠুর ঘটনার কথা মাঝে মধ্যে শোনা গেলেও এবার ঘটেছে অদ্ভুত এক কা-। ছেলেকে পড়া না ধরার অভিযোগে শ্রেণিকক্ষে পাঠদান অবস্থায় এক শিক্ষককে বেদম পিটিয়েছেন এক অভিভাবক!

বৃহস্পতিবার সকাল পৌনে ১১টার দিকে এ উপজেলার ভাওড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।

শিক্ষক ও ছাত্র-ছাত্রী এবং এলাকাবাসী শরিফ মিয়া নামের ওই অভিবাবককে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে। এ ঘটনায় এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সদস্য ও ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা জানান, ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষক আনন্দ চন্দ্র বিশ্বাস বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা ৪৫মিনিটে পঞ্চম শ্রেণিতে ক্লাস নিতে যান। কিছুক্ষণ পর ওই ক্লাসের ছাত্র সিয়ামের পিতা মো. শরিফ মিয়া ক্লাসে ঢুকে কোনো কিছু না বলেই শিক্ষক আনন্দ চন্দ্র বিশ্বাসকে গলায় গামছা পেঁচিয়ে বারান্দায় এনে বেদম পেটায়। এসময় ক্লাসের ছাত্র-ছাত্রীদের আত্মচিৎকারে অন্য শিক্ষক ও পরিচালনা পরিষদের সদস্য মো. শাজাহান মিয়া এগিয়ে তাকে নিবৃত করার চেষ্টা করেন। পরে শিক্ষক-শিক্ষার্থী এবং এলাকার লোকজন শরিফ মিয়াকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে।

বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সভাপতি মো. মতিয়ার রহমান জানান, শরিফ মিয়া এলাকার একজন দুষ্ট প্রকৃতির লোক। শিক্ষককে পেটানোর ঘটনায় তিনি উপযুক্ত বিচার দাবি করেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সম্পাদক ও ওই বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আল মামুন বলেন, আমরা এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট লিখিত অভিযোগ দিয়েছি।

মির্জাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মাইনউদ্দিন বলেন, ক্লাসে ছেলেকে পড়া না ধরার কথিত অভিযোগে শিক্ষককে লাঞ্ছিত করেছে। ঘটনাটি বিচারের জন্য ভ্রাম্যমাণ আদালতে পাঠানো হয়েছে।

লিখিত অভিযোগের বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মাসুম আহমেদ বলেন, বিষয়টি ভ্রাম্যমাণ আদালতে পাঠানো হয়েছে।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোছা: নাদিরা আখতার বলেন, ঘটনার সঙ্গে জড়িত আসামি অসুস্থ হয়ে পড়ায় তাকে কুমুদিনী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সুস্থ হলে তার বিচার হবে বলে তিনি জানান।

ফেসবুক মন্তব্য