ঢাকা বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ১৫, ২০১৮

Mountain View



মির্জাপুরে শিলা বৃষ্টিতে বোরো ধানের ব্যাপক ক্ষতি কৃষকের মাথায় হাত

Print Friendly, PDF & Email

শাহ্ সৈকত মুন্না, মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি : টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় শিলা বৃষ্টিতে বোরো আবাদের বেশ ক্ষতি হয়েছে। হঠাৎ শিলা বৃষ্টি হওয়ায় বোরো ধান মাটির সঙ্গে মিশে গেছে বলে কৃষকরা অভিযোগ করেছে। নিচু এলাকায় এই বোরো আবাদের ক্ষতি বেশী হয়েছে বলে কৃষকরা জানিয়েছে। গতকাল বুধবার উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে শিলা বৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্ত ও নিচু এলাকার জমিতে ধান মাটির সঙ্গে মিশে যাওয়ায় পচা ধান কৃষকরা কেটে নিয়ে যাচ্ছে।

mirzapur pic01, 27-4-16

জানা গেছে, সম্প্রতি মির্জাপুর উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে রাতের আঁধারে হালকা কালবৈশাখী ঝড় ও প্রচুর শিলা বৃষ্টি হয়। শিলা বৃষ্টিতে কাঁচা ও আঁধা পাকা বোরো ধান ক্ষেতের বেশ ক্ষতি হয়। বিশেষ করে নিচু এলাকায় এ বছর বোরো ধানের বাম্পার ফলন হলেও হঠাৎ শিলা বৃষ্টি হওয়ায় কৃষকদের স্বপ্ন ভঙ্গ হয়ে যায়। বোরো ধান শিলা বৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে মাটির সঙ্গে মিশে গেছে। উপজেলার মহেড়া, জামুর্কি, বানাইল, বহুরিয়া, ফতেপুর, বানাইল, ভাদগ্রাম, লতিফপুর, গোড়াই, তরফপুর ও আজগানা ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে বোরো ধান শিলা বৃষ্টিতে ক্ষতি হয়েছে বেশী। ত্রিমোহন গ্রামের কৃষক আব্দুর রহমান (৫৬) বলেন, এ বছর তিনি ৪০০শ শতাংশ জমিতে বোরো আবাদ করেছিলেন। কিন্ত শিলা বৃষ্টিতে তার সকল আশা ভেঙ্গে গেছে। তার মত অনেক কৃষকই এ অভিযোগ করেছেন।

এ দিকে উপজেলা কৃষি অফিস সুত্র জানায়, এ বছর মির্জাপুর উপজেলায় প্রায় ২০ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো ধান চাষের লক্ষ্য মাত্রা ধরা হয়েছে। কিন্ত লক্ষ্য মাত্রা ২০ হাজার হেক্টর ধরা হলেও উৎপাদন হয়েছে লক্ষ্য মাত্রার চেয়ে বেশী। কারন আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় এবং বীজ, সার ও কীটনাশকের দাম কম হওয়ায় কৃষকরা বোরো আবাদের দিকে ঝুঁকে পরে। কিন্ত হঠাৎ করে কিছু শিলা বৃষ্টি হওয়ায় কিছু কিছু এলাকায় বোরো ধানের সামান্য ক্ষতি হয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার মুহাম্মদ আরিফুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, মির্জাপুরে এ বছর বোরো ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। কিন্ত সম্প্রতি হঠাৎ করে কিছু শিলা বৃষ্টি হওয়ায় কোন কোন এলাকার কৃষকরা একটু ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের ক্ষতি পুষিয়ে দিতে ঐ সব এলাকার কৃষকদের বিভিন্ন সহযোগিতা করা হচ্ছে।

ফেসবুক মন্তব্য