ঢাকা রবিবার, জুন ২৪, ২০১৮

Mountain View



ইংরেজী ভার্সনে এসএসসিতে মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজই সেরা ॥ শতভাগ পেয়েছে জিপিএ-৫

Print Friendly, PDF & Email

শাহ্ সৈকত মুন্না, মির্জাপুর(টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি : এসএসসি পরীক্ষার ফলাফলে টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে ইংরেজী ভার্সনে মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজই সেরা ফলাফল অর্জন করেছে। এ বছর এই ক্যাডেট কলেজ থেকে ৫০ জন ক্যাডেট এসএসসি পরীক্ষায় বিজ্ঞান বিভাগ থেকে অংশ গ্রহণ করে সকলেই জিপিএ ৫ পেয়ে চমক দেখিয়েছে। অতীতের মত তাদের এ ধারাবাহিক সাফল্য অখুন্ন থাকায় কৃতজ্ঞ জানিয়েছেন ক্যাডেট কলেজ কর্তৃপক্ষ, শিক্ষক ও অভিভাবক মহল।

mirzapur pic1,11-5-16

বুধবার এসএসসির ফলাফল প্রকাশের পর থেকে মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজ ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থী, শিক্ষক মন্ডলী ও অভিভাবকদের মধ্যে এক বাঁধভাঙ্গা আনন্দের জোয়ার বইছে। ক্যাডেট কলেজ ক্যাম্পাসে গিয়ে দেখা গেছে শিক্ষার্থীদের উল্লাস। ক্যাডেট কলেজের অধ্যক্ষ উইং কমান্ডার আ ন ম আব্দুল হান্নান, সুপারিটেনডেন মেজর মহসীনউল হাসান ভুইয়া, ভাইস প্রিন্সিপাল রেজাউল করিম ও ক্যাপ্টেন আতিকুল ইসলাম তনয় এই ফলাফলে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

ক্যাডেট কলেজের সুযোগ্য অধ্যক্ষ উইং কমান্ডার আ ন ম আব্দুল হান্নান জানান, মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজ একটি ঔতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। মনোরম পরিবেশ ও বিশাল এলাকা নিয়ে প্রতিষ্ঠিত এই ক্যাডেট কলেজে ক্যাডেটদের সুশৃংখল, আদর্শ ও সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তোলা হয়। পড়াশোনার পাশাপাশি এখানে ক্যাডেটদের বিভিন্ন শিক্ষায় শিক্ষিত করা হয়। বিগত দিনে এখানকার ক্যাডেটরা এসএসসি, এইচএসসি ও জেএসসি পরীক্ষায় মেধার স্বাক্ষর বহন করে সম্মিলিত মেধা তালিকায় স্থান দখল করে আসছে। আগামীতে এই কলেজের ফলাফল আরও ভাল হবে এমন আশা করে সবার সহযোগিতা কমান করেছেন। এবছরও এই কলেজের ক্যাডেটরা তাদের ধারাবাহিক সাফল্য ধরে রাখায় কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন ক্যাডেট কলেজ কর্তৃপক্ষ।

২০১৬ সালে এই কলেজের গোল্ডেন ও জিপিএ ৫ প্রাপ্ত ক্যাডেটরা হচ্ছে, হোসেন, সামিউল, আবরার, ইরফান, আবির, ইনন্দ্র, আফতাব, আহসান, সাফি, মেহরাব, রহমান, ইনজামাম, মুহাম্মদ, ইসতিয়াকুব, জাওয়াত, ইসরাক, হাসান, রাদিব, মাহফুজ, তানাজিদ, মেহেদী, রায়হান, তাইমুর, মিরাজ, আতিক, মুসফিক, আলম, ফুয়াদ, বুলবুল, আলিফ, সোভার্তো, আহমেদ, সাদমান, তুর্জু, আসিফ, তাহসিন, শাসায়ার্তো, তৌফিক, শাহরিয়ার, ইব্রাহিম, ইমন, নিয়ন, তানজিম, আব্দুল্লাহ, রাজন, আবিদ, সাব্বির, নাফিজ, আহনাফ ও ওয়ালিদ।

ফেসবুক মন্তব্য