ঢাকা বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ১৫, ২০১৮

Mountain View



টাঙ্গাইলে নারী কেলেংকারী ও দুর্নীতির অভিযোগে প্রধান শিক্ষকের অপসারণের দাবীতে মানববন্ধন

Print Friendly, PDF & Email
নিজস্ব সংবাদদাতা : টাঙ্গাইল সদর উপজেলার রসুলপুর বাছিরন নেছা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সমীর কুমার বিশ্বাসের বিরুদ্ধে নারী কেলেংকারী,অর্থ আত্মসাৎ,অনিয়ম ও দূর্নীতির অভিযোগে অপসারণের দাবীতে বৃহস্পতিবার দুপুরে ওই স্কুলের ছাত্র-ছাত্রী,শিক্ষকদের একাংশ অভিভাবক এবং বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী  ঢাকা-বঙ্গবন্ধু মহাসড়কে মানববন্ধন,বিক্ষোভ মিছিল করেছে।

এসময় স্কুল কার্যালয়ে অভিযুক্ত শিক্ষককে প্রায় দুই ঘন্টা অবরুদ্ধ করে রাখে। খবর পেয়ে টাঙ্গাইল মডেল থানা পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বিদ্যালয় ম্যানেজিং সভাপতি ফজলুল হকের সহযোগীতায় এসআই নুরুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল পুলিশ অভিযুক্ত ওই শিক্ষককে নিরাপদে তার বাসায় পৌছে দেয়।
জানা যায়, ২০১৩ সালের মার্চ মাসে ওই বিদ্যালয়ের এক সহকারী শিক্ষিকাকে বিদ্যালয়ে কাজের কথা বলে তার বাড়ীতে নিয়ে শ্লীনতাহানীর চেষ্টা করে। সম্মানের ভয়ে ওই শিক্ষিকা কাউকে না বলে গোপনে ম্যানেজিং কমিটিকে অবহিত করে। ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির সহায়তায় বিষয়টি নিষ্পত্তি হয়। নিষ্পত্তি হওয়ার  পর বিষযটি জানাজানি হলে ওই বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রী,শিক্ষকদের একাংশ ও অভিভাবরাকরা ওই শিক্ষকের অপসারণ দাবী করে মানববন্ধ ও বিক্ষোভ মিছিল করে। 
বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও গালা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ফজলুল হকের নের্তৃত্বে কমিটির জরুরী বৈঠক হয়। ওই বৈঠকে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। কমিটিকে ১৫ দিনের মধ্যে দূর্নীতি, অর্থআত্মসাত ও নারী কেলেংকারী বিষয়ে একটি পুর্ণাঙ্গ তদন্ত প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। তদন্ত কাজ চলাকালীন সময়ে প্রধান শিক্ষক সমীরণ কুমার বিশ্বাসকে সাময়িক ভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে।
এবিষয়ে অভিযুক্ত শিক্ষক সমীর কুমার বিশ্বাস জানান, আমি চক্রান্তের শিকার,শিক্ষকদের একাংশ ও এলাকার কিছু লোক উন্নয়ন কর্মকান্ডে হিংসা করে আমার বিরুদ্ধে কোমল শিক্ষার্থীদেরকে ফুসলিয়ে দিয়েছে। আমার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের একটিও সঠিক ভাবে প্রমাণ করতে পারলে আমি দায়িত্ব থেকে অব্যহতি দিব।

ফেসবুক মন্তব্য