ঢাকা মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০১৮

Mountain View



সংঘর্ষের মধ্য দিয়ে গোপালপুরে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল চলছে

Print Friendly, PDF & Email
নিজস্ব সংবাদদাতা : হরতাল সমর্থকদের সঙ্গে সরকারদলীয়দের সংঘর্ষ, পিকেটিং ও ভাংচুরের মধ্য দিয়ে জেলার গোপালপুর উপজেলায় সকাল-সন্ধ্যা হরতাল চলছে। এতে ২৫ জন আহত হয়েছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ ১৫/২০ রাউন্ড টিয়ার শেল ও রাবার বুলেট ছোড়ে। আহতদের স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে গোপালপুর পৗরসভার কালিবাড়ী ও সুতি পলাশ এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ মোড়গুলোতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
জানা যায়, সকালে ছাত্রদল কর্মীরা উপজেলা সদরের সামনে অবস্থান নিয়ে ৮/১০টি সিএনজি, অটোরিকশা ও রিকশা ভাংচুর করে। এর পর সকাল ৮টার দিকে পৌরসভার সুতিপলাশ এলাকায় আওয়ামী লীগ সমর্থকদের ৫টি বাড়ি ও ৮/১০টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ভাংচুর চালায় হরতাল সমর্থকরা। এ সময় ৫ জন আওয়ামী লীগ সমর্থক আহত হন। আহতদের মধ্যে খোকন (২৫) নামে একজনকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।
পরে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে আওয়ামী লীগ প্রতিবাদ মিছিল বের করে। কালিবাড়ী এলাকায় মিছিল থেকে হরতাল সমর্থককারীদের ধাওয়া করা হয়। এ সময় সংঘর্ষ বেধে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ পুলিশ এসে ১৫/২০ রাউন্ড টিয়ার শেল ও রাবার বুলেট ছোড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এতে ২০ জন আহত হন। এ ঘটনার পর এলাকায় থমথম অবস্থা বিরাজ করছে।
এদিকে হরতালের কারণে উপজেলা শহরের প্রতিটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। তবে সরকারি ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা রয়েছে।
উল্লেখ্য, সাবেক উপমন্ত্রী এডভোকেট আব্দুস সালাম পিন্টু এবং ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ও বিএনপির কেন্দ্রীয় ছাত্র বিষয়ক সহ-সম্পাদক সুলতান সালাহ উদ্দিন টুকুর মুক্তির দাবিতে সোমবার সন্ধ্যায় উপজেলা বিএনপি গোপালপুর শহরে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিল শেষে মেহেরুন্নেছা মহিলা কলেজের সামনে অনুষ্ঠিত সংক্ষিপ্ত পথসভা থেকে আজ মঙ্গলবার সকাল-সন্ধ্যা এই হরতালের ডাক দেন উপজেলা বিএনপি সভাপতি ও পৌর মেয়র খন্দকার জাহাঙ্গীর আলম রুবেল।

ফেসবুক মন্তব্য