ঢাকা মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০১৮

Mountain View



কাদের মোল্লার শেষ হলেই সাঈদীর শুরু

Print Friendly, PDF & Email
আপিল শুনানি
কাদের মোল্লার শেষ হলেই সাঈদীর শুরু
ডেস্ক রিপোর্ট: মুক্তিযুদ্ধকালে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে ট্রাইব্যুনালের রায়ের বিরুদ্ধে জামায়াত নেতা কাদের মোল্লার করা আপিলের শুনানি চলতি সপ্তাহেই শেষ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। শুনানি শেষে সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেনের নেতৃত্বে পাঁচ বিচারপতির সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ রায়ের দিন নির্ধারণ করবেন।
এরপর শুরু হবে দলটির আরেক নেতা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর আপিল শুনানি। এমনি ইঙ্গিত দিয়েছেন ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউশন কার্যালয়ের প্রধান সমন্বয়ক এম কে রহমান। গত বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন। এ সময় আব্দুল কাদের মোল্লার আপিল শুনানি এক সপ্তাহের মধ্যে শেষ হবে বলেও তিনি জানান।

সর্বশেষ রবিবার কাদের মোল্লার আপিলের ওপর তার আইনজীবী ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক শুনানি শেষ করেন। এরপর আসামিপক্ষের আইনজীবীর যুক্তি খ-ন শুরু করেছেন রাষ্ট্রপক্ষ। অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম আজ এই যুক্তি খ-ন শুরু করেন।

জামায়াতের এই নেতাকে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২ যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দেন গত ৫ ফেব্রুয়ারি। পরে ৩ মার্চ কাদের মোল্লার সর্বোচ্চ সাজা (ফাঁসি) চেয়ে সুপ্রিম কোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় আপিল করে রাষ্ট্রপক্ষ। পরদিন ট্রাইব্যুনালের দেয়া সাজা বাতিল চেয়ে কাদের মোল্লাকে খালাসের আবেদন জানিয়ে আপিল করে আসামিপক্ষ। কিন্ত আপিলের শুনানি এখনও শেষ হয়নি। এরই মধ্যে আপিল নিষ্পত্তি করতে আইনে উল্লেখিত ৬০ দিন সময় অনেক আগেই পেরিয়ে গেছে।

কাদের মোল্লার পর দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীকে মৃত্যুদ- দিয়ে ঘোষিত রায়ের বিরুদ্ধে করা আপিল শুনানির সময়সীমাও গত ২৬ মে শেষ হয়েছে। কিন্তু ওই আপিলের এখনও শুনানিই শুরু হয়নি। সাঈদীর মামলার আপিল দায়ের করা হয়েছে ২৮ মার্চ। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল (সংশোধন) আইনের ২১(৪) ধারা অনুসারে আপিল দায়েরের ৬০ দিনের মধ্যে তা নিষ্পত্তির বিধান রয়েছে। চলতি বছরের ১৭ ফেব্রুয়ারি এই সংশোধনী আনা হয়।

গত ২৮ ফেব্রুয়ারি মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছিলেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১। রায় ঘোষণার ২৯ দিনের মাথায় ২৮ মার্চ রাষ্ট্রপক্ষ ও আসামিপক্ষ আপিল করে। এরপর ১৮ এপ্রিল আপিল বিভাগ ২ মে দিন ধার্য করে এই সময়ের পূর্বে উভয়পক্ষকে আপিলের সার-সংক্ষেপ জমা দিতে নির্দেশ দেন। এরপর উভয়পক্ষ মামলার সারসংক্ষেপ জমা দেন। এ মামলার আপিল শুনানির জন্য প্রস্তুত হয়েছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। এখন আপিল বিভাগ শুনানি করলেই সাঈদীর মামলার আপিলের শুনানি শুরু হবে। তবে প্রসিকিউশন সূত্র জানায়, চলতি সপ্তাহে কাদের মোল্লার আপিল শুনানি শেষ হলেই সাঈদীর আপিল শুনানি শুরু হবে।  

এদিকে একই অভিযোগে ট্রাইব্যুনালের দেয়া মৃত্যুদণ্ডের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেছেন জামায়াতের সহকারি সেক্রেটারি জেনারেল মুহাম্মদ কামারুজ্জামান। জামায়াতের এই নেতার পক্ষে গত বৃহস্পতিবার তার আইনজীবীরা সুপ্রিম কোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় আপিল আবেদন জমা দেন। তবে এই নেতার রায়ের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ আপিল করবে না বলে জানিয়েছেন প্রসিকিউশনের প্রধান সমন্বয়ক এম কে রহমান। রাষ্ট্রপক্ষ আপিল না করলেও আসামিপক্ষের করা আপিল শুনানিতে ট্রাইব্যুনালের দেয়া শাস্তি বহাল রাখার কথা বলা হবে।

প্রসঙ্গত, গত ৯ মে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে মুহাম্মদ কামারুজ্জামানকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ডের রায় দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২। কামারুজ্জামানের বিরুদ্ধে আনা ৭টি অভিযোগের মধ্যে ২টিতে ফাঁসি, ২টিতে যাবজ্জীবন ও ১টিতে ১০ বছরের জেল দেয় ট্রাইব্যুনাল। বাকি ২টি অভিযোগ থেকে তাকে খালাস দেয়া হয়। এম কে রহমান জানান, এই মামলায় সার্বিক বিষয় পর্যালোচনা করে আপিল না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাষ্ট্রপক্ষ।

ফেসবুক মন্তব্য