ঢাকা শুক্রবার, আগস্ট ১৭, ২০১৮

Mountain View



শীতে কতখানি পানি খাবো ? কেনো ও কিভাবে খাবো?

Print Friendly, PDF & Email

ডেস্ক রিপোর্ট : গরমের সময় ঘাম বেশি হয় বলে আমরা সাধারণত পানি একটু বেশিই খেয়ে থাকি । কিন্তু শীতকালে পিপাসা কম পায়, তাই দেখা যায় আমরা পানি খাওয়ার প্রয়োজনীয়তাও তেমন অনুভব করি না। ঠাণ্ডার জন্য পানি খেতে অনিহা কাজ করলেও শীতে পানি খাওয়া কমিয়ে দেয়াটা মোটেও কাজের কিছু নয়। আর সব বাদ দিলেও দেহের প্রয়োজনীয় পানির চাহিদাটা মেটানো দরকার। আপনার দেহে প্রতিদিন অন্তত ৩ লিটার পানির দরকার। এখানে একটা কথা বলে রাখা দরকার, প্রতিদিন আট গ্লাস পানি খাওয়ার একটি কথা যে শোনা যায়, তা ঠিক বিজ্ঞান সমর্থিত নয়, কারণ প্রচলিত গ্লাসের মাপকে আদর্শ হিসেবে ধরলে এতে মোট পানির পরিমাণ হয় ১.৯ লিটার। অর্থাৎ ১.১ লিটারের ঘাটতি থেকে যাচ্ছে আপনার শরীরে। শীতের প্রসঙ্গে ফিরে আসা যাক।

শীতে পানি কেন খাবেন-

  • খাবার হজমের জন্য যথেষ্ট পরিমাণ পানি পান করা উচিত। কোষ্ঠকাঠিন্য, অ্যাসিডিটি্‌ বা অম্লভাব, বমিভাবের মত বদহজমের সমস্যা গুলো প্রতিরোধের জন্য শুরু থেকেই পানি খাওয়া উচিত।
  • ঠাণ্ডা আবহাওয়ায় ত্বক শুষ্ক ও রুক্ষ হয়ে পড়ে। ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখার জন্য পানি জরুরি।
  • শীতের সময় সর্দি-কাশি, ত্বকের বিশেষ কিছু সমস্যা, অ্যালার্জির মত সমস্যাগুলো বেশি দেখা দেয়। যথেষ্ট পরিমাণে পানি খেলে এই সমস্যা গুলো অনেকাংশে কমান সম্ভব।
  • ঠাণ্ডার কারনে এই সময়ে সকালে উঠতে ইচ্ছা করে না, সারাদিন ঘুম ঘুম ভাব থাকে, সব কাজে আলসেমি লাগে। পরিমান মত পানি খেলে শরীরের কোষে অক্সিজেনের পরিমাণ বাড়বে। এতে ঘুম ঘুম ভাবটি দূর হয়ে আপনার দেহে আসবে সজীবতা।
  • শরীরের প্রয়োজনের তুলনায় কম পানি খেলে জয়েন্টে ব্যাথা, স্থুলতার সমসসা দেখা দেয়। এছাড়া দেহের তাপমাত্রা ও রক্ত চলাচল ভাল রাখার জন্য পানি দরকার।
  • পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি খেলে শরীরে পানির সঙ্কট তৈরি হয়না। ফলে পেশীগুলো স্বাভাবিকভাবে সংকুচিত ও প্রসারিত হতে পারে।
Warm-Water-with-Lemon-and-Honey

মেদ কমাতে লেবুর রস, মধু এবং গরম পানি মিশিয়ে খেতে পারেন

বোনাস টিপস :

  • প্রতিদিন সকালে ২ গ্লাস পানি খাওয়ার চেষ্টা করুন। সামান্য গরম পানিতে অল্প মধু ও লেবুর রস মিশিয়ে খেতে পারেন। কোষ্ঠকাঠিন্যের জন্য তো ভালই। এমনকি এটা বাড়তি মেদ কমাতেও সাহায্য করবে।
  • পানিতে সামান্য বিট লবন, জিরা গুঁড়ো, লেবুর রস, পুদিনা পাতা দিয়ে খেতে পারেন। এটি হজমের জন্য সহায়ক।
  • কাফেইন যুক্ত পানীয়র পরিবর্তে মাঝে মাঝে হারবাল টি, ফলের রস খান।শরীরের পানির চাহিদা মেটাতে এগুলোও সাহায্য করবে।

 

ফেসবুক মন্তব্য