ঢাকা রবিবার, নভেম্বর ১৮, ২০১৮

Mountain View



মির্জাপুরে কম্পিউটার প্রশিক্ষণের নামে মেয়েদের সঙ্গে প্রতারণা, নগ্নছবি প্রকাশ, লোকলজ্জায় গৃহবন্দি ছাত্রীরা, এলাকায় তীব্র উত্তেজনা

Print Friendly, PDF & Email

মীর আনোয়ার হোসেন টুটুল,মির্জাপুর থেকে : কম্পিউটার প্রশিক্ষণের নামে এলাকার অসহায় ও নিরীহ ছাত্রীদের নগ্নছবি ভিডিও করে বাজারে ছেড়েছে এক কম্পিউটার প্রশিক্ষক শিক্ষক । লোক লজ্জার ভয়ে কম্পিউটার প্রশিক্ষনার্থীরা বাড়ি থেকে বের হতে পারছে না বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ঘটনা জানাজানি হলে প্রতারক ঐ কম্পিউটার শিক্ষক সুজন মিয়া(২২) পালিয়ে গেছে। চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার আনাইতারা ইউনিয়নের চামারি ফতেপুর বাজারের সিয়াম ডিজিটাল স্টুডিও এন্ড মাল্টিমিডিয়া কম্পিউটার প্রশিক্ষণ সেন্টারে। এই ঘটনার পর এলাকায় তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে। গতকাল বৃহস্পতিবার ঘটনাস্থলে সরেজমিন গিয়ে সত্যতা পাওয়া গেছে এবং প্রতারক কম্পিউটার ট্রেনিং সেন্টারে তালা দিয়ে লাপাত্তা দিয়েছে বলে জানা গেছে।

ফতেপুর এলাকার বাসিন্দা আব্দুস সালাম, কলেজ ছাত্র মাহিবুর রহমানসহ অনেকেই অভিযোগ করেন ,কম্পিউটার সেন্টারের মালিক চামারি ফতেপুর গ্রামের আজগর আলীর ছেলে সুজন মিয়া। সুজন নিজেকে কম্পিউটার শিক্ষক দাবী করে বাজারে সিয়াম ডিজিটাল স্টুডিও এন্ড মাল্টিমিডিয়া কম্পিউটার প্রশিক্ষণ কেন্দ্র গড়ে তুলে। এই প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে বিভিন্ন এলাকার স্কুল ও কলেজের ছাত্রী এবং মেয়েরা প্রশিক্ষণের জন্য এলে বিভিন্ন কৌশলে তাদের প্রতারনার ফাঁদে ফেলে নগ্ন ছবি তুলে। তারপর সুজনের চাহিদামত ঐ ছাত্রীরা কাজ না করলে নগ্ন ছবি ও ভিডিও বাজারে ছাড়ার হুমকি দেয়।

এ ভাবে ঐ প্রতারক এলাকার ২০/২৫ জন মেয়ের ছবি ও ভিডিও করে বাজারে ছেড়েছে বলে ভুক্তভোগীরা অভিযোগ করেছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে দুই কলেজ ছাত্রী অভিযোগ করেন,তাদের কম্পিউটারে ভর্তি হতে বিভিন্ন সাইজের ছবি লাগবে এই বলে বিভিন্ন অঙ্গ ভঙ্গিতে ছবি ও ভিডিও করে। পরে তার সাথে মেলামেশার জন্য কু প্রস্তাব দেয়। মেলামেশা না করলে নগ্নছবি ও ভিডিও বাজারে ছাড়ার হুমকি দেয়। পরে বাদ্য হয়ে অসহায় ছাত্রীরা তার সাথে দৈহিক মিলন হয়। তাদের মত ২০/২৫ জন মেয়েকে সে প্রতারনার ফাঁদে ফেলে ব্যাবহার করেছে বলে জানিয়েছে। তারা প্রতারক সুজনকে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির দাবী জানিয়েছে। ফতেপুর এলাকার বিভিন্ন ভিডিওর দোকান থেকে আপত্তির মেয়ের নগ্নছবির সিডি উদ্ধার করা হয়েছে।

এ দিকে এই ঘটনা জানাজানি হলে ছাত্রীদের অভিভবক কম্পিউটার ট্রেনিং সেন্টারে হামলার চেষ্টা করে। ঘটনা টের পেয়ে প্রতারক সুজন এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়। প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে এখন তালা ঝুঁলছে।

এ ব্যাপারে আনাইতারা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু হেনা মোহাম্মদ ময়নাল হকের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন এ ধরনের অভিযোগ তার কাছে এসেছে। তিনি ব্যাবস্থা নিতে গেলে প্রতরক সুজন পালিয়ে যায় বলে জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে মির্জাপুর থানায় যোগাযোগ করা হলে পুলিশ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন এ ধরনের অভিযোগ তাদের কাছে এসেছে । প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা নেওয়া হবে।

ফেসবুক মন্তব্য