ঢাকা বুধবার, মে ২৩, ২০১৮

Mountain View



শিক্ষা কর্মকর্তার স্ত্রী বলে কথা!

Print Friendly, PDF & Email

b11আমানত হোসাইন মাসুম, সখীপুর সংবাদদাতা: শিক্ষা কর্মকর্তার স্ত্রী বলেই নানা অনিয়ম ও দায়িত্বে অবহেলা করে চলেছেন এক সহকারি শিক্ষক। এ অভিযোগ উঠেছে উপজেলার সারাসিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক নাছিমা আক্তারের বিরুদ্ধে। সে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বাবুলের স্ত্রী। তিনি প্রধান শিক্ষক, বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি ও অভিভাবকদের বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে নির্ধারিত সময়ে বিদ্যালয়ে না গিয়ে কোমলমতি শিশুদের পড়াশুনায় ব্যঘাত ঘটাচ্ছেন বলে একাধিক অভিভাবক জানান। তার সাথে তাল মিলিয়ে চলেছেন ওই বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক আব্দুর রহিম মিয়া। এর ফলে বিদ্যালয়ের পড়াশুনার মান একেবারেই শূণ্যের কোঠায় চলে গেছে বলেও সর্বমহলে অভিযোগ উঠেছে। পড়াশুনা সঠিক ভাবে চালানো এবং নিয়মিত বিদ্যালয়ে আসার দাবিতে অনিয়মকারী শিকদের বিরুদ্ধে স্থানীয় সারাসিয়া বাজারে মিছিল বের করেছিল শিক্ষার্থীরা।

ওই বিদ্যালয়ের স্টুডেন্ট কাউন্সিলের নেতা পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্র আমিনুল ইসলাম জানায়- নাছিমা ম্যাডাম ও রহিম স্যার দু’জনই দেরিতে স্কুলে আসে এবং আমাদের ঠিকমত পড়ায় না। এ ব্যাপারে সারাসিয়া বাসার চালা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুল কুদ্দুছ মিয়া গণ্যমান্যদের নিয়ে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করেন।

সাবেক মেম্বার আবদুর রাজ্জাক জানান- পরবর্তীতে এরকম অনিয়ম হবে না বলে শিক্ষকরা তাকে জানিয়েছে। বাসার চালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শামীম আরা বলেন- ওই শিক্ষকদের  বিরুদ্ধে আংশিক অনিয়ম থাকলেও এখন তা নেই।

অভিযুক্ত শিক্ষিকা নাছিমা আক্তার বলেন,আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে।

সখীপুর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আমিনুল হক বলেন- বিষয়টি আমি জানার পর সমাধানের চেষ্টা করছি।

ফেসবুক মন্তব্য