ঢাকা শনিবার, নভেম্বর ১৭, ২০১৮

Mountain View



ভূঞাপুরে ফিল্মি স্টাইলে গৃহবধুকে হত্যা

Print Friendly, PDF & Email

বিশেষ সংবাদদাতা, ভূঞাপুর : ফিল্মি স্টাইলে হত্যা করা হয়েছে গৃহবধু খাদিজা আক্তারকে। স্বামী, জা, ভাশুর, শ্বশুর ও ননদ মিলে গলা টিপে, ঘাড় ভেঙে হত্যা করার অভিযোগ করেছে নিহতের পিতা।

ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার রাতে উপজেলার নিকরাইল ইউনিয়নের পলাশিয়া গ্রামে। ঘটনার পর থেকে নিহতের স্বামী, শ্বশুর, ভাশুর, জা পলাতক রয়েছে।

এলাকাবাসী জানায়, বছর তিনেক আগে ভূঞাপুরের নিকরাইল ইউনিয়নের পলাশিয়া গ্রামের ওসমান মন্ডলের ছেলে ইনছান মন্ডলের সঙ্গে বিয়ে হয় টাঙ্গাইল সদর উপজেলার কাকুয়া ইউনিয়নের রাঙ্গাচড়া গ্রামের হোসেন প্রামানিকের মেয়ে খাদিজা আক্তারের। স্বামীর পরকীয়ার কারনে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হতো। দেড় বছর আগে ইয়ামনী নামে তাদের একটি কন্যা সন্তান হয়। কন্যা হওয়ার পর খাদিজার উপর আরো মনক্ষুন্ন হয় স্বামী ইনছান। মনোমালিন্যের ধারাবাহিকতার এক পর্যায়ে বুধবার সকালে তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়। এ সময় ইনছান খাদিজাকে ব্যাপক মারধর করে। ইনছানের সাথে যোগ দেয় তার বড় ভাই আইয়ুব আলী, স্ত্রী তুষ্ট, শ্বশুর ওসমান মন্ডল, ননদ তাসলীমা। এরা সবাই মিলে খাদিজাকে নির্যাতন করে গলা টিপে ঘাড় ভেঙে হত্যা করে। খাদিজাকে বিকেলে ভাবী ফাহিমা ও অন্য এক ছেলের মাধ্যমে পাঠানো হয় টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে। হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন। পরে খাদিজাকে হাসপাতাল থেকে শ্বশুর বাড়িতে আনা হয়। পরে রাত ৮টার দিকে খাদিজার গলায় ওড়না পেচিয়ে ঝুলানো হয় ফ্যানের সঙ্গে। সাজানো হয় ফাঁসির নাটক। বাড়ির লোকজনের চিৎকার শুনে ছুটে আসে আশপাশের মানুষ। কিছুক্ষণ পরেই লাশ নামিয়ে ফেলে আত্মহত্যা হিসেবে বিষয়টি ধামাচাপার চেষ্টা চালানো হয়।

এদিকে আজ বৃহস্পতিবার সকালে ভূঞাপুর থানা পুলিশকে খবর দেয়া হয় আত্মহত্যার। পরে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মেঝেতে শোয়ানো অবস্থায় খাদিজার লাশ উদ্ধার করে দুপুরে ময়না তদন্তের জন্য টাঙ্গাইল মর্গে প্রেরণ করে।

খাদিজার পিতা হোসেন আলী প্রামানিক জানান, আমার মেয়েকে শশুর বাড়ীর লোকজন পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে। আমি আমার মেয়ে হত্যার বিচার চাই।

এ ব্যাপারে ভূঞাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হারেচ আলী মিঞা জানান, এ ঘটনায় একটি ইউডি মামলা দায়ের করা হয়েছে। লাশ ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। রিপোর্ট হাতে পেলেই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ফেসবুক মন্তব্য