ঢাকা রবিবার, নভেম্বর ১৮, ২০১৮

Mountain View



ধনবাড়ীতে প্রধান শিক্ষকের নির্যাতনে ছাত্র হাসপাতালে, প্রতিবাদে বিক্ষোভ

Print Friendly, PDF & Email

এসএম সুবজ, মধুপুর(টাঙ্গাইল)প্রতিনিধিঃ ক্ষুব্ধ প্রধান শিক্ষকের চড়, থাপ্পর, কিল, ঘুষি, লাথি ও বেত্রাঘাতে আহত হয়ে মধুপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে শয্যাশায়ী স্বপন হোসেন নামের ১০ম শ্রেণির এক ছাত্র। ৫ম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীর সাথে মামুলি বিষয়ে ঝগড়া করা ও অপছন্দের এলাকার ছাত্র হওয়াই স্বপনের অপরাধ।

ঘটনাটি টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী উপজেলার হাজরাবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের। ঘটনাটি ঘটিয়েছেন বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক রাশেদুল আলম রিপন।

dhanbari 2

হাসপাতাল বেডে শয্যাশায়ী আহত স্বপন। ছবি : টাঙ্গাইল বার্তা

আহত শিক্ষার্থী স্বপন একই উপজেলার হাদিরা গ্রামের জনৈক আব্দুল মোতালেব’র ছেলে। সে পাইটকা গ্রামের নানা সেকান্দরের বাড়িতে থেকে ওই বিদ্যালয়ে পড়াশোনা করছে।

স্বপন জানায়, শনিবার টিফিনের সময়ে পাশের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণির কাফি এক শিক্ষার্থীর সাথে মামুলি বিষয় নিয়ে ঝগড়া করে। ঝগড়ার বিচার করতে গিয়ে প্রধান শিক্ষক তার উপর চড়াও হয়ে তার উপর অমানবিক নির্যাতন চালান। এসময় স্বপন জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। অজ্ঞান অবস্থায় তাকে প্রথমে স্থানীয় একটি কিনিকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে মধুপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করিয়ে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

স্বপনের বাবা আব্দুল মোতালেব অভিযোগ করেন, পাইটকা এবং প্রধান শিক্ষকের গ্রাম হাজেরাবাড়ীর মধ্যে পূর্ব বিরোধের জেরের প্রভাবেও তিনি এ কাজ করেছেন।

এ ঘটনায় রোববার বেলা ২টার দিকে উপজেলার বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা সহপাঠীকে নির্যাতনের প্রতিবাদে এবং অভিযুক্ত শিক্ষকের বিচার দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল শেষে ইউএনও অফিসের সামনে সমাবেশ করে। এ সময় দায়িত্বে থাকা সহকারি কমিশনার (ভূমি) সেলিম রেজা ও ধনবাড়ী থানার ওসি মিজানুর রহমান অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দিলে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা তাদের কর্মসূচি স্থগিত করে।

বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি মইদুল ইসলাম ফেরদৌস জানান, এ বিষয়ে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি এলকাবাসী ও শিক্ষকদের নিয়ে রোববার দুপুরে যৌথ সভা করে অভিভাবক সদস্য রমজান আলীকে আহবায়ক করে ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে ৩ দিনের মধ্যে তদন্ত রিপোর্ট জমা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছে।

জেলা শিক্ষাকর্মর্তা শফিউল্লাহ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান।

এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক রাশেদুল আলম রিপনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বেয়াদবির জন্য শাস্তি দেয়া হয়েছে তবে হাসপাতালে ভর্তি করানোর মত অবস্থা হয়নি ।

ফেসবুক মন্তব্য