ঢাকা মঙ্গলবার, নভেম্বর ১৩, ২০১৮

Mountain View



ঘাটাইলে স্বামী শ্বাশুড়ী কর্তৃক গৃহবধুকে আগুনে পুড়িয়ে মারার অভিযোগ

Print Friendly, PDF & Email

মোঃ আরিফ খান, ঘাটাইল থেকে  : ঘাটাইল উপজেলা আনেহলা ইউনিয়নে হাটকয়ড়া গ্রামের বিথী (২০) নামে এক গৃহবধুকে স্বামী ও শ্বাশুড়ী মিলে আগুনে পুড়িয়ে মারার অভিযোগ পাওয়া গেছে। নিহত গৃহবধু বিথী কালিহাতীর এলেঙ্গা লুৎফর রহমান মতিন কলেজে মেধাবী ছাত্রী বলে জানা যায়।

পুলিশ, নিহতের বড় বোন বিউটি ও এলাকাবাসী  জানা যায়, ঘাটাইল উপজেলার আনেহলা ইউনিয়নের হাটকয়ড়া গ্রামের মৃত বাছেদ আলীর ছেলে এলেঙ্গা নগরবাড়ীর কৃষি ডিপ্লোমা কলেজের ছাত্র জনি (২৫) একই গ্রামের ইয়াকুব আলীর ছোট মেয়ে বিথি (২০) এর সাথে ২০১১ সলে প্রেমের সম্পর্ক চলাকালীন বিথি অন্তসত্ত্বা হয়ে পড়ে। এতে গ্রামবাসী বিয়ের জন্য চাপ দিলে শ্বাশুড়ি জরিনা বেগম ছেলেকে ঐ মেয়ের সাথে বিয়ে দিতে অস্বিকৃতি জানায়। ঐ গ্রামের মাতাব্বরা সামাজিকভাবে বিয়ে সম্পন্ন করলেও বিয়ের পর থেকে মনে-প্রাণে মেনে নিতে পারেননি শ্বাশুড়ি জরিনা। ছেলে বিয়ের পর ছেলের বউয়ের উপর সে রাগ করে পার্শ্ববর্তী কালিহাতী থানা এলেঙ্গাতে আলাদা বাসায় ভাড়া থাকত। মাঝে মধ্যেই বাড়িতে এসে বউ-এর উপর নানা ভাবে শারীরিক, মানসিক নির্যাতন ও অত্যাচার করত।

গত ২০ ডিসেম্বর আনুমানিক রাত নয়’টায় ঘরের ভিতরে শ্বাশুড়ি জরিনা ও স্বামী জনি মিলে বিথির হাত পা বেধে শরীরে আগুন ধরিয়ে দেয় এতে তার শরীরে নব্বই শতাংশ পুড়ে যায়। বিষয়টি কাউকে না জানিয়ে গোপনে ঢাকার সাভার এনাম মেডিক্যাল কলেজ এন্ড হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সেখানে বিথীর শারীরিক অবস্থা অবনতি হলে সেখান থেকে স্থানান্তর করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয় সাত দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে গত বৃহস্পতিবার সকাল দশটায় বিথি মারা যায়। পুলিশ বিথীর স্বামী জনিকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে এবং শ্বাশুড়ি জরিনা পলাতক রয়েছে।

পাশের বাড়ীর নূরুল ইসামের স্ত্রী হাসনা বেগম জানায় বিয়ের আগের থেকেই জনি অনেকটা বেপোরোয়া ও নেশা গ্রস্থ ছিলেন তিনি আমার স্বামীকে ও ছেলেকে গত জুন মাসে কুপিয়ে আহত করে। তাদের ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পায় না। তারা বিভিন্ন সময় সংঘবন্ধভাবে এলাকায় বিভিন্ন কুকর্ম চালিয়ে যান বলে এলাকাবাসী জানায়। মেয়ের চাচা লুৎফর রহমান বাদী হয়ে ঘাটাইল থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছে। মামলা নম্বর-১৮, তারিখঃ ২৭/১২/২০১৩ । এ বিষয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মাকসুদুল আলম জানায় থানায় মামলা হয়েছে ময়না

তদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পর জানা যাবে এটি হত্য না আত্মহত্যা। এ বিষয়ে ঐ গ্রামের বাসিন্দা ঘাটাইল উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল হালিম রনি টাঙ্গাইল বার্তাকে জানায়, যেহেতু বিষয়টি অস্বাভাবিক তাই এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। ঐ গ্রামের মানুষ আমাকে বলেছে স্বামী এবং শ্বাশুড়ি মিলে শরীরে পেট্রোল ঢেলে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মেরেছে।

ফেসবুক মন্তব্য