ঢাকা শুক্রবার, মে ২৪, ২০১৯

Mountain View



বুদ্ধি ও সাহসিকতায় ময়মনসিংহ থেকে অপহৃত ইমরান মধুপুরে মুক্ত 

Print Friendly, PDF & Email

এসএম সবুজ, মধুপুর(টাঙ্গাইল)প্রতিনিধিঃ- বুদ্ধি ও সাহসিকতায় ময়মনসিংহ থেকে অপহৃত ইমরান(১২) নামের এক কওমী  মাদরাসা ছাত্র টাঙ্গাইলের মধুপুর থেকে মুক্ত হয়েছে।

সোমবার সকাল ৯ টার দিকে অপহরণের প্রায় ২৪ ঘন্টা পর মধুপুর বাসস্ট্যান্ডে দাঁড়িয়ে থাকা অপহরণকারীদের মাইক্রোবাস থেকে ইমরান দৌড়ে পালিয়ে এ মুক্তির স্বাদ পায়।

madhupur

ছবি- বাবা, ভাই, শিক্ষকের সাথে ইমরান।

ইমরান ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলার তেজপাটুনি গ্রামের জনৈক মোফাজ্জল হোসেনের ছেলে। বাড়ি থেকে ৭কি.মি. দূরে আলজামিয়াতুল আকবরিয়া কাছিমুল উলুম মাদরাসার আবাসিকের ছাত্র ইমরান হেফজ
বিভাগের শিক্ষার্থী।

ইমরান জানায়, রবিবার সকালে বাড়ি থেকে হেঁটে মাদরাসায় যাওয়ার পথে জালিহাটা বড় পুকুরপাড় এসে পৌছলে অজ্ঞাত দুই ব্যক্তি তাকে ডেকে কাছে নেয়। এরপর সে আর কিছু  জানে না। সোমবার সকালে জেগে মধুপুর বাসস্ট্যান্ডে দাঁড়িয়ে থাকা একটি মাইক্রোবাসে  নিজেকে আবিষ্কার করে। পাশে আরও একজন ঘুমিয়ে থাকা ১২/১৪ বছরের ছেলে।  বুঝতে পারে বিপদে পড়েছে সে। এক মুহূর্ত চিন্তা করে আচমকা গাড়ির দরজা খোলে ভো দৌড়। মধুপুর বাসস্ট্যান্ডে দৃষ্টি টেলিকম’র মালিক ছালেকুজ্জানের কাছে কান্না ও কাঁপা গলায়  সাহায্য প্রার্র্থী হয়ে বাড়িতে বড় ভাই সোহেল রানাকে মোবাইল করে। এদিকে এ ঘটনায় অপহরণকারিরা বিপদ আঁচ করে দ্রুত বাসস্ট্যান্ড এলাকা ছাড়ে। পরে ঘটনা

শুনে ছালেকুজ্জামান ইমরানকে নিজের জিম্মায় রেখে মোবাইলে যোগাযোগ করে মধুপুরে এনে  দুপুরের দিকে বাবা মোফাজ্জল হোসেন,ভাই সোহেল রানা, মাদরাসার শিক্ষক ইয়াছির  আরাফাত রাসেলের কাছে তুলে দেন।

শিক্ষক ইয়াছির আরাফাত ও বাবা মোফাজ্জন হোসেন জানান, এক সপ্তাহ মাদরাসা বন্ধ থাকার  পর চালু হওয়া মাদরাসায় আসতে গিয়ে ইমরান এ অপহরণের শিকার হয়। এ ঘটনায় আমরা

সবাই উদ্বিগ্ন হয়ে খোঁজাখুজি করতে ছিলাম। আজ (সোমবার) সকালে মাদরাসায় বিশেষ দোয়াও  করেছি আমরা।

ফেসবুক মন্তব্য