ঢাকা রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৮

Mountain View



সখীপুরে মাদ্রাসা ছাত্রীকে অপহরণের পর ধর্ষণ

Print Friendly, PDF & Email

Rape0_8

মোঃ আল-আমিন খান, টাঙ্গাইল : টাঙ্গাইলে সখীপুরে এক মাদ্রাসাছাত্রীকে অপহরণের পর ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় গত শুক্রবার রাতে ওই ছাত্রীর বাবা দেলোয়ার হোসেন বাদী হয়ে জাহিদ হোসেন (২৫) ও মো. ওমর আলীকে (৪০) আসামি করে সখীপুর থানায় একটি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা (নং-৬, তাং- ১০/০৪/২০১৫) দায়ের করেন।

গতকাল শনিবার মেয়েটিকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে পুলিশ। জাহিদের বাড়ি সখীপুর উপজেলার হাতিবান্ধা ও মো.ওমর আলীর বাড়ি ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার ডাকাতিয়া গ্রামে। মেয়েটি সখীপুর উপজেলার কামালিয়ারচালা আলিম মাদ্রাসার দশম শ্রেণীর ছাত্রী।

মামলার বিবরণ ও মেয়েটির পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, উপজেলার হাতিবান্ধা গ্রামের মোমেন মিয়ার ছেলে বখাটে জাহিদ মিয়া (২৫) প্রায়শই ওই মেয়েটিকে মাদ্রাসায় আসা-যাওয়ার পথে উত্যক্ত করত। গত বুধবার সকালে মেয়েটি মাদ্রাসার উদ্দেশ্যে রওনা হলে রাস্তায় ওঁৎপেতে থাকা বখাটে জাহিদ ও তার ৩/৪জন বন্ধু-বান্ধব নিয়ে জোরপূর্বক মেয়েটিকে মাইক্রোবাসে উঠিয়ে নিয়ে যায়। দুইদিন পর গত শুক্রবার ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার ডাকাতিয়া গ্রাম এলাকা থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়।

মেয়েটি জানায়, ‘রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা মাইক্রোবাসের কাছে পৌঁছলেই কাপড় দিয়ে আমার মুখ বেঁধে ফেলে। এ সময় ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে জাহিদ আমার বাম হাতে ছুঁড়ি দিয়ে আঘাত করে এবং আমাকে আমার ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোড়পূর্বক ধর্ষণ করে।

সখীপুর থানার উপরিদর্শক (এসআই) ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সুমন চন্দ্র রায় জানায়, ‘আসামিরা পলাতক বিধায়, তাদেরকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে

ফেসবুক মন্তব্য