ঢাকা বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ১৫, ২০১৮

Mountain View



মধুপুর পৌরসভার পানি সরবরাহের কাজে নিম্নমানের পাইপ ব্যবহারের অভিযোগ, পৌরবাসীর অসন্তোষ

Print Friendly, PDF & Email

এসএম সবুজ, মধুপুর(টাঙ্গাইল)প্রতিনিধি:- টাঙ্গাইলের মধুপুর পৌরসভা প্রতিষ্ঠার ২০বছর পর পৌরবাসীদের জন্য বিশুদ্ধ পানি সরবরাহে বিশেষ প্রকল্পের কাজ চলছে। পৌরশহরের বেশ কয়েকটি এলাকায় মাটি খুঁড়ে বসানো হচ্ছে পাইপ। পানি সরবরাহের এই পাইপ লাইনের কাজে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে নকল ও নিম্নমানের পাইপ ব্যবহারের অভিযোগ তুলেছেন এলাকাবাসী। কাজের স্থল থেকে ২০ ফিট দৈর্ঘের একটি পাইপ নিয়ে প্রমাণ রেখে দিয়েছেন মধুপুর পৌর আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক।

madhupur

রাজধানীর রোকেয়া এন্টারপ্রাইজ নামের ওই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানটির উক্ত কাজের ইস্টিমেট পৌর কর্তৃপক্ষসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে পাওয়া যায়নি। তবে পৌরসভার প্যানেল মেয়র মেহেদী হাসান মিঞ্জুর সাথে যোগযোগ করলে ঠিকমত কাজ হচ্ছে বলে তিনি জানান। কিন্তু ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কি ইস্টিমেটে কাজ করছে তা পরবর্তিতে জানানোর কথা বলেও জানাননি। এ ব্যাপারে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সাথেও যোগাযোগ করা যায়নি। নাসির উদ্দিন নামের কাজ দেখাশোনার দায়িত্বে থাকা জনৈকের কাছেও নেই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানটির মালিক মিজানুর রহমানের মুঠোফোন নাম্বার। সংগ্রহ করে দেয়ার কথা থাকলেও শেষ অবধি না দেয়ায় তার সাথে কথা বলা যায়নি। পানি সরবরাহের পাইপ লাইন বসানোর এ চলামান কাজ নিয়ে পৌরবাসীর ক্ষোভের শেষ নেই। নির্বিঘ্নে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান নিম্নমানের কাজ চালিয়ে গেলেও দেখার যেন কেউ নেই।

এলাকাবাসী অভিযোগ করে জানান, পৌরবাসীদের পানি সরবরাহের নামে এই প্রকল্পে হরিলুট চলছে। বাজারে উন্নতমানের পাইপের গায়ে ব্যাসের পাশাপাশি মিলিমিটারে পুরুত্ব উল্লেখ থাকলেও এই প্রকল্পে ব্যবহৃত পাইপের গায়ে পুরুত্বের উল্লেখ নেই। কেউ কেউ পানি সরবরাহের এ পাইপ বসানোর কাজকে বিদ্যুতের উন্নত সংযোগের কথা ভেবেছেন।

madhupur 2

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, পারটেক্সের নাম ব্যবহার করে বিএসটিআই ও আইএসও’র সিল মারা নিম্নমানের নকল পাইপ ব্যবহার করা হচ্ছে। অল্পদিনেই মাটির নিচে পাইপটি নষ্ট হয়ে যাওয়ার শঙ্কা করছেন তারা।

মধুপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শরীফ আহমেদ নাসির জানান, পৌরসভা উন্নয়নে এবং পৌরবাসী হিসেবে আমাদের সুযোগ প্রাপ্তিতে দুর্নীতি মেনে নেয়া যায় না। সম্মিলিত চেষ্টায় উন্নয়নের এ বাধা দূর করতে হবে।

মধুপুর পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদ পারভেজ জানান, কাজের নিম্নমান দেখে কর্মস্থল থেকে একটি পাইপ আনার সময় কাজ বন্ধ করে দিয়ে এসেছি। তিনি অভিযোগ করেন, পরে একটি চক্র ঠিকাদারকে এই নিম্নমানের কাজ চালিয়ে যেতে সহযোগিতা করছে।

এদিকে পানির মেইন সরবরাহ লাইনে ৩ ইঞ্চি ও মহল্লায়-মহল্লায় ১/২ ইঞ্চি পাইপে পানির সংযোগ বসানো হচ্ছে। এতে পানি সরবরাহের সুবিধা না পেয়ে উল্টো ভোগান্তিতে পড়ার আশঙ্কা করেছেন অনেকে। মাস্টার পাড়ার জনৈক কলেজ শিক্ষক জানান, ওই এলাকায় বসানো পাইপ ব্যাসে ছিল খুব সরু।

মধুপুর উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগের প্রকৌশলী তোফাজ্জল হোসেন জানান ,কাজ সিডিউল অনুযায়ী সঠিকভাবেই হচ্ছে। তিনি আরও জানান, পাম্প থেকে ৪ ইঞ্চি, তারপর ৩ ইঞ্চি এবং শেষে সংযোগ এরিয়াতে ২ ইঞ্চি পাইপ দেয়া হচ্ছে। তার ভাষ্যমতে, পৌরসভায় সংশ্লিষ্ট বিভাগে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র (ওয়ার্ক ওয়ার্ডার) দেয়া হয়েছে। কিন্তু বুধবার পৌর সভায় গিয়ে পৌর মেয়রকে না পেয়ে প্রকৌশল বিভাগে গিয়ে সহকারি প্রকৌশলী শাহজাহান কবিরের সাথে কথা বললে তিনি বিষয়টি অস্বীকার করেছেন।

এ ব্যাপারে মধুপুর পৌরসভাকে পাইপ লাইনের মাধ্যমে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের এ প্রকল্পের আওতায় আনার উদ্যোক্তা অর্থ বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি, সাবেক খাদ্যমন্ত্রী ড. আব্দুর রজ্জাক এমপি গণমাধ্যমকর্মিকে জানান, অভিযোগ জানলাম। আজই (বৃহস্পতিবার) বিষয়টির খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ফেসবুক মন্তব্য