ঢাকা মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০১৮

Mountain View



ভূঞাপুরে বৃদ্ধকে অপহরণ করে মুক্তিপন আদায়, অপহরণকারীকে গ্রেফতার

Print Friendly, PDF & Email

অভিজিৎ ঘোষ, ভূঞাপুর (টাঙ্গাইল) সংবাদদাতা: টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে শুক্কুর মাহমুদ নামের এক বৃদ্ধকে অপহরণ করে মুক্তিপন আদায় করার মামলায় শনিবার সন্ধ্যায় অপহরণকারী আব্দুল হালিমকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এদিকে অপহরণের পর মুক্তি পাওয়ার আনন্দে রবিবার সকালে শুক্কুর মাহমুদকে দুধ দিয়ে গোসল ও মিষ্টি বিতরণ করেছে এলাকাবাসী।

মামলা সূত্রে জানা যায়, উপজেলার বলরামপুর গ্রামের শুক্কুর মাহমুদকে অপহরণ করে পার্শ্ববর্তি মাদারিয়া গ্রামের আব্দুল হালিম ও তার সহযোগিরা। অপহরণের পর তাকে গাছের সাথে বেঁধে রেখে শুক্কুর মাহমুদের স্ত্রী নাজমাকে ফোন করে দেড় লাখ টাকা মুক্তিপন দাবী করে। তার স্ত্রী দিশেহারা হয়ে ধারদেনা করে ১ লাখ ২০ হাজার টাকা মুক্তিপন দিয়ে তার স্বামীকে মুক্তি করে। বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হলে ভূঞাপুর থানায় একটি সাধারন ডায়রী করেন শুক্কুর মাহমুদ। পুলিশ ডায়রীটি এজাহারভুক্ত না করায় আব্দুল হালিমের বিরুদ্ধে গত ২০ এপ্রিল টাঙ্গাইল কোর্টে অপহরণকারীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়। বিজ্ঞ আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে সংশ্লিষ্ট থানাকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন। পরে পুলিশ আদালতের আদেশের পর তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা পেয়ে আব্দুল হালিমের বিরুদ্ধে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করে। পরে আদালত আব্দুল হালিমকে গ্রেফতারের নির্দেশ দেন। পুলিশ গতকাল (শনিবার) সন্ধ্যায় তাকে গ্রেফতার করে এবং পরের দিন রবিবার তাকে টাঙ্গাইল কোর্টে প্রেরণ করেন।

এদিকে অপহরন থেকে মুক্তি পাওয়ায় ও অপহরনকারীকে গ্রেফতার করার আনন্দে এলাকাবাসী শুক্কুর মাহমুদকে দুধ দিয়ে গোসল ও মিষ্টি বিরতণ করেছে।

মুক্তি পাওয়া শুক্কুর মাহমুদ জানান, ধান ক্ষেতে পানি দেয়ার জন্য গিয়েছিলাম। সেখান থেকে আব্দুল হালিম ও তার সহযোগিরা আমাকে চোখ মুখ বেঁধে ধরে নিয়ে গাছের সাথে রেখে দেড় লাখ টাকা মুক্তি দাবী করে। পরে আমার স্ত্রী ধারদেনা করে ১ লাখ ২০ হাজার টাকা দিয়ে মুক্ত করে আনেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ভূঞাপুর থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক কবির হোসেন জানান, তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা থাকায় তাকে শনিবার সন্ধ্যায় গ্রেফতার করে কোর্টে প্রেরণ করা হয়েছে।

ফেসবুক মন্তব্য