,


টাঙ্গাইলে ১৪ জেএমবি’র ২০ বছর কারাদণ্ড

Print Friendly, PDF & Email

ডেস্ক রিপোর্ট : টাঙ্গাইলে নিষিদ্ধ ঘোষিত জেএমবির ১৪ সদস্যকে ২০ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড ও ৩০ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে আরও তিন বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। দেশব্যাপি সিরিজ বোমা হামলা মামলায় মঙ্গলবার দুপুরে টাঙ্গাইলের প্রথম অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আবুল মনসুর আহমেদ এ দণ্ডাদেশ দেন।

এ মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামীরা হচ্ছে- গোপালগঞ্জের কোটালিপাড়া উপজেলার বর্ষাপাড়া গ্রামের এনায়েতুল্লাহ, টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার বল্লা গ্রামের আরমান বিন আজাদ, একই গ্রামের দুই সহোদর আব্দুল্লাহ আল মামুন ও রাসেল, টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলার হাবলা গ্রামের হাবিবুর রহমান হাবিব, টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলার মাদারকোল গ্রামের মোহাম্মদ মিজান, আব্দুল আহাদ, হাবিল উদ্দিন, রুস্তম আলী, মোহাম্মদ তারিক ও মোহাম্মদ ইয়ামিন মিয়া, নারায়ণগঞ্জ জেলার আড়াইহাজার উপজেলার টেকপাড়া গ্রামের দেলোয়ার হোসেন, বাগেরহাট জেলার শরনখোলা উপজেলার তেরাবেকা গ্রামের শহিদুল ইসলাম শহিদ ও ঢাকার ধামরাই উপজেলার শরিফবাগ গ্রামের আব্দুল্লাহ আল তাসনীম।

মামলা সুত্রে জানা যায়, ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট সারা দেশের ন্যায় টাঙ্গাইলের কোর্ট চত্বর, শহীদ জগলু রোড ও বেবিস্ট্যান্ড এলাকায় একযোগে সিরিজ বোমা হামলা চালায় জেএমবি সদস্যরা। এ ঘটনায় টাঙ্গাইল সদর মডেল থানায় এই থানার তদানীন্তন এসআই বোরহান উদ্দিন বাদী হয়ে আসামীদের নাম উল্লেখ না করে বিশেষ ক্ষমতা আইন ও বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে মামলা দায়ের করেন। তদানীন্তন অপর এসআই এস কে খোদা নেওয়াজ মামলার তদন্ত শেষে জেএমবির নেতা শায়েক আব্দুর রহমান ও বাংলাভাইসহ দণ্ডিত ১৪ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। দণ্ডিতদের মধ্যে আরমান বিন আজাদ, রাসেল, তারিক ও আব্দুল্লাহ আল তাসনীম এখনো পলাতক।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন অতিরিক্ত পিপি অ্যাডভোকেট মনিরুল ইসলাম খান। পলাতক আসামীদের পক্ষে রাষ্ট্র কতৃক নিয়োজিত আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট শামিম চৌধুরী দয়াল ও বাকি আসামীদের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন।

Comments

comments