,


সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজে ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে ছাত্রদল

Print Friendly, PDF & Email
স্টাফ রিপোর্টার:  সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজে  ছাত্রদলের ডাকা ধর্মঘট ঠিলেঠালাভাবে পালিত হচ্ছে। ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের উপর হামলা ও গুমের এর সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার চেয়ে এ ধর্মঘটের ডাক দেন সিওমেক ছাত্রদল। ছাত্রদল সমর্থিত ছাত্রছাত্রীরা ক্যাম্পাসে যায়নি আজ। আসেনি অধ্যক্ষও। তবে সরকার দলীয় ছাত্রছাত্রী ও শিক্ষকরা এ ধর্মঘট প্রত্যাখ্যান করে ক্লাস করছে।

জানা যায়, সংগঠন ছেড়ে ছাত্রদলে যোগ দেওয়ায় সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ (সিওমেক) ছাত্রাবাসে অন্তত ১০ জনকে মারধর করে আহত করেছে ছাত্রলীগ। তাদের মধ্যে গুরুতর আহত অবস্থায় দু’জনকে ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তবে খবরটি জানাজানি হওয়ায় আহত সঞ্জয় ও সানিকে ‘লুকিয়ে’ ফেলা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে ছাত্রদল। 

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে  সিওমেক ছাত্রদল সভাপতি আসলামুল ইসলাম রুদ্র টাঙ্গাইল বার্তাকে জানান, গত শনিবার রাত আড়াইটার দিকে পার্শ্ববর্তী আবু সিনা ছাত্রাবাস থেকে ছাত্রলীগের কয়েক কর্মী শামসুদ্দিন ছাত্রাবাসে এসে ছাত্রদল কর্মীদের ওপর হামলা চালায়।  ঘুমন্ত অবস্থায় হামলাকারীরা রড ও লাঠিসোটা দিয়ে ছাত্রদল কর্মীদের বেধড়ক মারধর করে। এতে হাত-পা ও মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত সানি এবং পায়ে আঘাতপ্রাপ্ত সঞ্জয়কে তাৎক্ষণিক ওসমানী হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেওয়ার পর অবস্থা খারাপ হওয়ায় তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু রবিবার সকাল থেকে তাদের হাসপাতালের সিটে খুজে পাওয়া যাচ্ছেনা।

এ বিষয়ে হাসপাতাল কতৃপক্ষের দাবী আহতরা স্বেচ্ছায় হাসপাতাল ত্যাগ করেছে। কিন্তু  বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার জন্য তাদের ‘লুকিয়ে’ ফেলা হয়েছে বলে দাবী করেছে সিওমেক ছাত্রদল সভাপতি।

এদিকে রবিবার রাতে  সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজের (সিওমেক) অধ্যক্ষ ওসুল আহমদ চৌধুরীর বাসায় হামলা করেছে দুর্বৃত্তরা। এ বিষয়ে রুদ্র বলেন, এ ঘটনার সঙ্গে ছাত্রদলের কর্মীরা কোনভাবেই জড়িত নয়। ছাত্রলীগের কর্মীরা অধ্যক্ষের বাসায় হামলা করে সেটার দায়ভার আমাদের উপর চাপিয়ে দিয়ে ঘটনা অন্যদিকে মোড় দিতে চেষ্টা করছে।

তিনি আরো বলেন,  ছাত্রদল কর্মীদের উপর হামলার সুষ্ঠু তদন্ত ও দোষীদের কঠোর শাস্তি দাবী করছি। এ হামলার বিচার না হলে ছাত্রদল ঘরে বসে থাকবেনা। এর পাল্টা জবাব দেবে।  

Comments

comments